জেএসসিতে ট্যালেন্টপুল বৃওি পাওয়া শিশু শিল্পী রাইসার স্বপ্ন ডাক্তার হওয়ার

সেই ছোট্ট বেলা থেকেই শিশু শিল্পীর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করে আসছে সাদিকা রহমান রাইসা। আর পড়াশোনা তো চলতে হবেই। তবে পড়লেখাতেও নিজ মেধার পরিচয় দিয়েছে ছোট্ট রাইসা। একাডেমীর বেসরকারী কয়েকটি বৃত্তি তো পেয়েছেই গত বছর জে্এসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন এ প্লাস সহ টেলেন্টপুলে বৃওিও পেয়েছে সে। নিজের অক্লান্ত পরিশ্রম আর বিশেষ করে তার মায়ের উল্লেক করে আয়নাটিভির সাথে একান্ত আলোচনায় রাইসা বলে-মমরে কথা না বললেই নয়, মম আমার জন্য যা করেছে তা বলে বুঝাতে পারবোনা.. আর আমার স্কুলের শিক্ষক/ শিক্ষিকা আমার জন্য অনেক পরিশ্রম করেছেন তাই তাদেরকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। সাথে পড়ালেখাও করে আসছি, আমি এখন নবম শেনীতে পড়ি, মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজে।
অভিনয় জগতের কথা প্রসঙ্গে রাইসা বলে- এই বয়সেই আমি কয়েকটি ম্যুভির কাজ শেষ করেছি। এর মধ্য কয়েকটি ম্যুভি মুক্তি পেয়েছে। জাজ মাল্টিমিডিয়া “বাদশা” ইম্প্রেস টেলিফিল্ম এর পুরস্কার প্রাপ্ত “খাঁচা” লাকি ম্যুভিজ এর “শেষ চুম্বন” The last kiss..মুক্তির অপেক্ষায় আছে “সেলুট” আর হাতে আরো কিছু ম্যুভির কাজ ঈদেরছুটি পর শুটিং হয়ার কথা আছে।

এর সাথে নাটক টেলিফিল্মের কাজও চলছে বলে জানায় সে। এর মধ্যে অবশ্য রাইসা অভিনীত অনেকগুলি নাটক টেলিফিল্ম ধারাবাহিক নাটক টিভি চ্যানেল গুলিতে চলেছে। রাইসা ভালবাসে মডেলিং, নাচ, গান করতে। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পারফর্মও করে সে।

Advertisements

এই পর্যন্ত অসংখ্য পুরুস্কার পাওয়া রাইসা বলে শেষ চুম্বন ম্যুভিটি আমার জিবনের শ্রেষ্ঠ অভিনীত ম্যুভি। এই মুভি করে আমি দর্শকদের মনে দাগ কাটাতে পেরেছি।আমি নিজেও কেঁদেছি দর্শকদের ও কাঁদিয়েছি। বিনিময় অনেক ভালবাসা পেয়েছি। আমি আশা রাখি এই ম্যুভি আমার অভিনয়ের জন্য জাতীয় Awards পেতে পারি। আমি আমার দেশকে ভালবাসি, দেশের মানুষকে ভালবাসি, তাই এই দেশ একদিন আমরাই এগিয়ে যাবো ইনশাল্লাহ।

তাই আমার ইচ্ছা সুশিক্ষিত হয়ে ডাক্তার হবো। তার সাথে অভিনয় ও করে যাবো। আমাকে নিয়ে অনেক পরিচালক এখনই মুভি/নাটকের মেন ভুমিকায় নিয়ে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে, আমি আর একটু সময় নিয়ে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছি।

আয়না টিভিকে রাইসা জানায় যে বাংলাদেশে তার আইডল হলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাবনুর। এস প্রসঙ্গে রাইসা বলে-উনি আমার আমার প্রিয়, ওনাকে আমি আন্নি বলে ডাকি (শাবনুর আন্নি)। বাহির থেকে যখনই শাবনুর আন্নি আসে আমার জন্য অনেক কিছু নিয়ে আসে। আমাকে অনেক অনেক ভালবাসেন। বাংলাদেশে যখন থাকেন আমি প্রতি সপ্তাহ শাবনুর আন্নি আমার মম এক সাথে অনেক ঘুরাঘুরি করি।
তিনি আমার মম এর সাথে প্রায় ছোট কাল থেকে সবচেয়ে কাছের বন্ধু। আমার রক্তের সাথে মিশে আছে শাবনুর আন্নির অভিনয়। তাই আন্নির কান্না হাসি সবকিছু আমার আন্নির কাছ থেকে পাওয়া।

রাইসার ইচ্ছা বড় হয়ে এই দেশের নিরীহ মানুষের পাশে থেকে সেবা করার। নিজেকে একজন সৎ ভাল মানুষ হিসাবে গড়ে তোলাই রাইসার ভবিষ্যৎ লক্ষ্য। সে দেশ, জাতি ও বিশ্ববাসীর করোনা মুক্তি চেয়ে এবং নিজের সাধারণ সফল জীবনের জন্য সকলের কাছে দোওয়া চেয়েছে। আয়না টিভি’র পক্ষ থেকেও আমরা জানাই রাইসার জন্য দোওয়া ও শুভকামনা।

aainatv
Author: aainatv